December 11, 2023, 4:38 pm
শিরোনামঃ
কুড়িগ্রামে ঘন কুয়াশায় জনজীবন বিপর্যস্ত দ্বাদশ জাতীয় সাংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে মতবিনিময় সভা গোপালগঞ্জের বোড়াশীর মিটু মেম্বারের তান্ডবে গুরুতর আহত-১৬ সাবেক আইজিপি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ নূরুল আনোয়ারে ইন্তেকাল আইজিপির শোকসভা জাজিরা নির্বাচন অফিস যেনো ঘুষ-বাণিজ্যের কলঘর বাংলাদেশ অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ অফিসার্স কল্যাণ সমিতি’র ২০২৩-২০২৫ নির্বাচন দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের তফসিল বৈধ: হাইকোর্ট ময়মনসিংহে ওসি শাহ কামাল আকন্দ এর বদলী জনিত বিদায় সংবর্ধনা জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলামের ৬ সদস্য গ্রেপ্তার: র‍্যাব দৌলতপুরে এক শতাংশ ভোটার সমর্থন দিতে পারেনি তিন স্বতন্ত্র প্রার্থী
নোটিশঃ
আপনার আশেপাশের ঘটে যাওয়া খবর এবং আপনার ব্যবসার বিজ্ঞাপন প্রচারের জন্য যোগাযোগ করুন মানবাধিকার খবরে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা বরাবরে খোলা চিঠি

Reporter Name

বরাবর,
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, শেরে বাংলা নগর, তেজগাঁও, ঢাকা-1215
বিষয়:-প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে বাঁচাতে, উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার অনুমতি প্রদানের আবেদন।

জনাবা,
যথাযথ সম্মান সহকারে সদয় বিবেচনার জন্য সবিনয়ে নিবেদন করছি যে,প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খা লেদা জিয়া (বয়স-৭৮ বছর) লিভার সিরোসিস,আর্থ্রাইটি স,ডায়াবেটিস,কিডনি,ফুসফুস,হার্ট ও চোখের সমস্যাসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছেন। উল্লেখ্য যে,জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে বিজ্ঞ আদালত দোষী সাব্যস্ত করে মোট সতের বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেন। ২০২০ সালের ২৫শে মার্চে করোনা মহামারি শুরু হলে পরিবারের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ফৌজদারী কায্যবিধি আইনের ৪ ০১ ধারার অনুবলে নির্বাহী আদেশে দণ্ড স্থগিত করে কারা বন্দি দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে সরকার শর্তসাপে ক্ষে ছয় মাসের জন্য মুক্তি দেয়।

সাজা স্থগিতের শর্ত হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে,তিনি ঢা কাস্থ নিজ বাসায় থেকে তার চিকিৎসা গ্রহণ করবেন এবং উক্ত সময়ে তিনি দেশের বাইরে গমন করতে পারবেন না। এরপর কয়েক দফায় বেড়েছে সাজা স্থগিতের মেয়াদ। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিতের মেয়াদ ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩ শেষ হয়। এ অবস্থায় কয়েক দিন আগে খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ বৃদ্ধি এবং চিকিৎসার জন্য বিদেশে নেওয়ার জন্য তার পরিবারের পক্ষ থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আবেদন করা হয়। তৎ প্রেক্ষিতে ২৫শে সেপ্টেম্বর ২০২৩, হতে আরও ৬ মাসের জন্য দণ্ড স্থগিত করেছে সরকার। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগে র কারা-২ শাখার উপসচিব এর সই করা এক প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।

আজ 26শে সেপ্টেম্বর 2023 তারিখে The Daily Sta r বাংলা অনলাইন পত্রিকা শিরোনাম করে যে, “বেগম খালেদা জিয়াকে বাঁচাতে হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে নিতে হবে।”

সংবাদে আরো উল্লেখ করা হয় যে,বেগম খালেদা জিয়ার শ্বাসকষ্ট হচ্ছিল। মাঝরাতে সিসিইউতে নিয়ে অক্সিজেন দি য়ে সেটা সমাধানের চেষ্টা করা হয়েছে। বেগম খালেদা জি য়াকে কিছুক্ষণ আগে কেবিনে আনা হয়েছে।তবে তার অব স্থা স্থিতিশীল বলা যাবে না। অতিদ্রুত উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে নেওয়া প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

সোমবার দুপুর সোয়া ১১টার দিকে তার শারীরিক অবস্থার বিষয়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগী র দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন,’বেগম খালেদা জিয়ার শ্বাসক ষ্ট হচ্ছিল। মাঝরাতে সিসিইউতে নিয়ে অক্সিজেন দিয়ে সে টা সমাধানের চেষ্টা করা হয়েছে।’এখন খালেদা জিয়াকে বাঁচাতে হলে উন্নত চিকিৎসা দরকার। ডাক্তাররা বলেছেন যা দেশে সম্ভব না।আমরা অনেকদিন ধরেই তাকে বিদেশে নেওয়ার কথা বলছি। কিন্তু সরকার কর্ণপাত করছে না, এ খন একেবারে শেষ সময় চলে এসেছে। অবিলম্বে বিদেশে নেওয়া দরকার, না হলে তাকে বাঁচানো যাবে না। যদিও সিসিইউ থেকে তাকে কিছুক্ষণ আগে কেবিনে আনা হয়ে ছে। এতে স্বস্তির কোনো কারণ নেই, এটাকে স্থিতিশীলও বলা যাবে না। তার শারীরিক অবস্থা উঠানামা করছে,’ বলেন তিনি।

এমতাবস্থায় প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে বাঁচাতে, উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার অনুমতি প্রদানের আবেদনটি সদয় বিবেচনার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নিকট সবিনয়ে আবেদন জানাচ্ছি।

যেহেতু নির্বাহী আদেশে কতিপয় শর্ত সাপেক্ষে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার দন্ড স্থগিত আছে।একইভাবে নির্বাহী আদেশে উনার বিদেশে উন্নত চিকিৎসার আবেদনটিও সরকার সদয় বিবেচনা করতে পারে।এইক্ষেত্রে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে বিদেশে উন্নত চিকিৎসার নিমিত্তে অনুমতি প্রদানের জন্য নিম্নোক্ত বিষয়াদি বিবেচনা করা যেতে পারে:-

1) প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের সুযোগ্য একজন মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী। ১৯৭১ সনে বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে দেশ মাতৃকার টানে বাংলাদেশকে স্বাধীন করতে যারা প্রথমেই এগিয়ে এ সেছিলেন, তন্মধ্যে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান অন্য তম একজন। মুক্তিযুদ্ধকালীন উনার অবদান সমূহ উনার সহযোদ্ধা ড. কর্ণেল (অবঃ) অলি আহম্মদ বীর বিক্রম সহ অনেকেই অবগত আছেন। মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে দেশনে ত্রী বেগম খালেদা জিয়া পাক-হানাদার বাহিনী কর্তৃক আট কাবস্থায় অত্যন্ত মানবেতরভাবে সেই সময়টি অতিবাহিত করেছিলেন।

2) প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া তিন বার নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী।

3) প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ইতি পূর্বে বিদেশে উন্নত হাসপাতালে চিকিৎসা নিতেন এবং উ নার শারীরিক অবস্থা বিবেচনা করে পুনরায় বিদেশে উন্নত চিকিৎসা নেওয়ার সুযোগ দেয়া মানবতা ও মানবিতার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হতে পারে।4) তিনি যেহেতু দন্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তি, সেহেতু বিদেশে চিকিৎসা শেষে পুনরায় দেশে ফিরে আসবেন এবং বিদেশে অবস্থানকালীন সময়ে চিকিৎসা ব্যতীত বেআইনী কিছু করবেন না।

5) প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার নিমিত্তে দলীয় সূত্রে/পারিবারিক সূত্রে ইতিপূর্বে সরকারের নিকট দাখিলী অনুমতির আবেদনটি মেলাফাইডি ইনটেনশান (Malafide Intention) নিয়ে করা হয়নি। এটি তার শারীরিক রোগের জটিলতা বিবেচনায় ও দেশে যুগোপযোগী চিকিৎসা ব্যবসস্থার অপ্রতুলতার প্রেক্ষাপটে করা হয়েছে।

6) দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া যে সকল রোগে ভুগছেন, তার যুগোপযোগী সুচিকিৎসা ব্যবস্থা আমাদের দেশে নেই।

7) দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া বিদেশে চিকিৎসার নিমিত্তে গিয়ে সরকার বা দেশের ভাব-মূর্তি ক্ষুন্ন হয় তদ্রুপ কোনো বিবৃতি দেবেন না বা তদ্রুপ কোনো কাজ করবেন না।

8) দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে বিদেশে উন্নত চিকিসার সুযোগ দেওয়া মানবিকতা, আইন ও ইকুইটি মতে তাঁর প্রাপ্য অধিকার।

9) দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার ক্ষেত্রে কোনো বিজ্ঞ আদালত কর্তৃক নিষেধাজ্ঞা নেই।

10) সরকারের নির্বাহী বিভাগ, নির্বাহী আদেশে যেইভাবে উনার দন্ড স্থগিত রেখে বাসায় থাকার অনুমতি দিয়েছেন, একইভাবে উনার শারীরিক রোগের জটিলতা ও দেশে উনার যুগোপযোগী চিকিৎসার অপ্রতুলতার বিষয়টি সদয় বিবেচনা করে চিকিৎসার নিমিত্তে নির্বাহী আদেশে বিদেশ যাওয়ার অনুমতি দিতে পারেন।

এই প্রসঙ্গে আরো উল্লেখ্য যে,
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধানের ৩২ নং অনুচ্ছেদ অনুযায়ী, “আইনানুযায়ী ব্যতীত জীবন ও ব্যক্তি-স্বাধীনতা হইতে কোন ব্যক্তিকে বঞ্চিত করা যাইবে না।” এই অধিকার জাতিসংঘের মানবাধিকার-ঘোষণাপত্রে রয়েছে।

মানবাধিকারের সার্বজনীন ঘোষণাপত্রের ২৫ অনুচ্ছেদে বর্ণিত আছে, প্রত্যেক ব্যক্তির পর্যাপ্ত জীবনযাত্রার মানের অধিকার রয়েছে যা, তার নিজের ও নিজের পরিবারের স্বাস্থ্য ও ভাল থাকার জন্য যথেষ্ট যেমনঃ খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান, চিকিৎসা ও প্রয়োজনীয় সামাজিক সেবাসমূহ।

১৯৪৮ সালের ১০ ডিসেম্বর প্যারিস শহরে জাতিসংঘ কর্তৃক বিশ্বজুড়ে মানবাধিকার রক্ষার একটি সাধারণ মানদণ্ড নির্ধারণের লক্ষ্যে যে সনদকে বিশ্বব্যাপী বিবেচনা করা হয় মানবাধিকারের সুরক্ষা সনদ হিসেবে এবং এখন পর্যন্ত জাতিসংঘভুক্ত ১৯২টি দেশ এই সনদের সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করেছে।

মানবাধিকার ঘোষণাপত্রের ৩০টি ধারার মধ্যে ১, ২ ও ৩ নম্বর ধারা নিম্নে উল্লেখ করা হল:-

ধারা ১- সমস্ত মানুষ স্বাধীনভাবে সমান মর্যাদা এবং অধিকার নিয়ে জন্মগ্রহণ করে। তাদের বিবেক এবং বুদ্ধি আছে; সুতরাং সকলেরই একে অপরের প্রতি ভ্রাতৃত্বসুলভ মনোভাব নিয়ে আচরণ করা উচিৎ।

ধারা ২- এ ঘোষণায় উল্লেখিত স্বাধীনতা এবং অধিকারসমূ হে গোত্র,ধর্ম, বর্ণ,শিক্ষা,ভাষা,রাজনৈতিক বা অন্যবিধ মতা মত,জাতীয় বা সামাজিক উৎপত্তি,জন্ম,সম্পত্তি বা অন্য কোন মর্যাদা নির্বিশেষে প্রত্যেকেরই সমান অধিকার থাক বে কোন দেশ বা ভূখণ্ডের রাজনৈতিক, সীমানাগত বা আন্তর্জাতিক মর্যাদার ভিত্তিতে তার কোন অধিবাসীর প্রতি কোনরূপ বৈষম্য করা হবে না; সে দেশ বা ভূখণ্ড স্বাধীনই হোক,হোক অছিভূক্ত,অস্বায়ত্বশাসিত কিংবা সার্বভৌমত্বের অন্য কোন সীমাবদ্ধতায় বিরাজমান।

ধারা ৩- জীবন, স্বাধীনতা এবং দৈহিক নিরাপত্তার অধিকার প্রত্যেকের আছে।

সার্বজনীন মানবাধিকার সনদে স্বাক্ষরিত দেশ হিসেবে বাং লাদেশ এই সনদের অভিভুক্ত ধারাগুলোর সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে আসছে। শুধু তাই নয়, মানবাধিকার নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বাংলাদেশের সংবিধান প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এবং সেটি সংবিধানের তৃতীয় অধ্যায়ের (২৬-৪৭ক) নং অনুচ্ছেদে সুস্পষ্টভাবে উল্লেখিত আছে।

অতএব পরম শ্রদ্ধেয়, বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নিকট আমার বিনীত অনুরোধ ও প্রার্থনা যে, প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে বাঁচাতে, উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার অনুমতি প্রদানের আবেদনটি সদয় বিবেচনা করার মর্জি হয়।

নিবেদক
স্বাক্ষরিত-
(যীশু কুমার আচার্য্য)
চট্টগ্রাম
এই ফেইজবুক আই.ডি. হোল্ডার
তারিখ: 26/09/2023ইং


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Our Like Page