March 2, 2024, 4:28 pm
শিরোনামঃ
৭ মাসে রেমিট্যান্স এসেছে এক লাখ ৪১ হাজার ৯০০ কোটি টাকা – সংসদে অর্থমন্ত্রী ডিএমপির অভিযানে মাদকসহ গ্রেফতার ৬৪ মাদকসহ আসামী ছিনিয়ে নেয়া সেই যুবলীগ নেতা র‍্যাব-৩ হাতে গ্রেফতার ময়মনসিংহে ডিবির অভিযানে ৬০ বোতল ভারতীয় মদসহ গ্রেফতার জাজিরায় জাতীয় ভোটার দিবস পালিত ডিআরইউ’র প্রয়াত সদস্য পরিবারকে মাঝে বীমার চেক হস্তান্তর ও অসুস্থ সদস্যদের চিকিৎসা অনুদান প্রদান ঢাকা বার নির্বাচনে সভাপতি-সম্পাদকসহ ২১ পদে আওয়ামী লীগের জয় জাজিরায় রাতের আধারে একজনকে কুপিয়ে হত্যা জাতীয় বীমা দিবস ২০২৪ ও উপলক্ষে র‍্যালি, আলোচনা সভা ও চেক বিতরণ জাজিরায় গোয়াল ঘরে আগুনে পুড়ল গরু-ছাগল, বাঁচাতে গিয়ে দগ্ধ কৃষক
নোটিশঃ
আপনার আশেপাশের ঘটে যাওয়া খবর এবং আপনার ব্যবসার বিজ্ঞাপন প্রচারের জন্য যোগাযোগ করুন মানবাধিকার খবরে।

সমাবেশের নামে ধংসাত্মক কর্মকান্ডে জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা: ডিএমপি কমিশনার

Reporter Name

প্রথম বাংলা – শান্তিপূর্ণভাবে সমাবেশ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েও পূর্বপরিকল্পিতভাবে নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে অঙ্গিকার করেছেন ডিএমপি কমিশনার হাবিবুর রহমান, বিপিএম(বার), পিপিএম(বার)।

শান্তিপূর্ণ সমাবেশের অনুমতি নিয়েও পুলিশের উপর বিএনপি নেতা-কর্মীদের হামলা ও শনিবারের সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে রাত সাড়ে দশটায় ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত তাৎক্ষনিক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ অঙ্গিকার ব্যক্ত করেন ডিএমপি কমিশনার।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, আপনারা সকলেই অবগত আছেন, আজকে পল্টন এবং তার আশপাশের এলাকায় বিএনপি’র সমাবেশ ছিল। অনুমতি গ্রহণের সময় বিএনপির নেতৃবৃন্দ নিজেরাই উল্লেখ করেন, তারা বিজয়নগর মোড় থেকে ফকিরাপুল পর্যন্ত এলাকায় প্রায় এক লক্ষ থেকে ১ লক্ষ ২০ হাজার লোকের জমায়েত করবেন।

তিনি বলেন, তাদের সমাবেশে কেউ যাতে কোন ধরনের নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড চালাতে না পারে, তার জন্য ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ এবং অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী সার্বিক নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করে। কিন্তু বিস্ময়ের সাথে আপনারা লক্ষ্য করেছেন, সকাল দশটা নাগাদ বিএনপি’র অসংখ্য নেতা কর্মী কাকরাইল মসজিদ মোড়ের আশপাশে অবস্থান গ্রহণ করে এবং বিনা কারণে উপর্যুপরি বাস ও বিভিন্ন যানবাহনে হামলা করতে থাকে।এর কিছুক্ষ ণ পর তারা অতর্কিতভাবে বিচার বিভাগের সম্মানের প্রতী ক মাননীয় চিফ জাস্টিস মহোদয়ের বাসভবনে আক্রমণ করে এবং গেট ভাঙ্গার চেষ্টা করে।

এক পর্যায়ে তারা গেট ভেঙ্গে লাঠি- সোটা হাতে বাসভবনে র ভিতরে ঢুকে পড়ে এবং ভাঙচুর চালায়।অতঃপর পুলিশি বাঁধার মুখে তারা বাসা থেকে বেরিয়ে যায় এবং পার্শ্ববর্তী সুপ্রিম কোর্টের মাননীয় বিচারপতিদের বাসভবন জাজেস কমপ্লেক্সে আক্রমণ চালায় এবং রিসিপশন রুমের ভিতরে অগ্নিসংযোগের চেষ্টা করে। এছাড়াও জাজেস কমপ্লেক্সের সিসি ক্যামেরাসহ আশপাশের পুলিশের শত-শত সিসি ক্যামেরা ভেঙে ফেলে। তান্ডবলীলার এক পর্যায়ে পুলিশ তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করার চেষ্টা করে। কিন্তু ধ্বংসযজ্ঞের এ বিষয়টি অনাকাঙ্ক্ষিত ও ধারণাতীত ছিল তবুও ঢাকা মেট্রপলিটন পুলিশ উচ্ছৃঙ্খল আক্রমণকারীদেরকে ছত্রভঙ্গ করে।

কমিশনার বলেন, এক পর্যায়ে দুষ্কৃতিকারীরা কাকরাইল মোড় থেকে নাইটিঙ্গেল মোড় পর্যন্ত বেশ কিছু যানবাহন জ্বালিয়ে দেয় এবং আইডিইবি ভবনের ভিতর অগ্নিসংযো গের চেষ্টা করে। নাইটিংগেল মোড়ে তারা বাসে অগ্নিসং যোগ করে।উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুলের সামনে দুজন পুলিশকে রাস্তায় ফেলে নির্মমভাবে প্রহার করে এবং মৃত্যু নিশ্চিত মনে করে ক্ষান্ত হয়। একই সাথে তারা রাজারবাগ পুলিশ হাসপাতালে আক্রমণ চালায় এবং ভিতরে ঢুকে ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞ সম্পন্ন করার পর একটি আইসিইউ এম্বুলেন্সসহ অন্তত ২৬ টি গাড়িতে অগ্নি সংযোগ করে।

ঘটনার ভয়াবহতায় রোগীরা দিগ্বিদিক ছুটাছুটি করতে থাকে এবং এক ভীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। এরপর তারা শান্তিনগরে কর্ণফুলী গার্ডেন সিটির পিছনে রমনা ডিসি ট্রাফিকের অফিস ভাঙচুর করে এবং অগ্নিসংযোগের চেষ্টা করে এবং পুলিশকে আক্রমণ করে। এ স্থানে তারা দীর্ঘ সময় ধরে তান্ডব চালায়।

তিনি বলেন,একপর্যায়ে তারা রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সের পাশে অবস্থিত রাস্তা থেকে পুলিশ লাইনের দিকে ইট পাট কেল ছুড়তে থাকে এবং পুলিশ লাইনের অভ্যন্তরে অবস্থি ত বাংলাদেশ পুলিশ মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে ভাঙচুর চালায়। এ ধ্বংসযজ্ঞের এক পর্যায়ে তারা বক্স কালভার্ট রোডের মাথা য় পুলিশকে বেধড়ক পিটায় এবং একজন পুলিশকে পিটি য়ে ও চাপাতি দিয়ে মাথায় গুরুতর আঘাত করে মৃত্যুনিশ্চি ত করেও তারা পিটাতে থাকে এবং মৃতদেহে ন্যাক্কারজন কভাবে বারবার লাথি মারতে থাকে।

একপর্যায়ে তাদের একটি গ্রুপ পল্টন থানা আক্রমণ করার চেষ্টা করে।এ সকল এলাকার ট্রাফিক বক্সগুলি আগুন দি য়ে জ্বালিয়ে দেয়। অসংখ্য বাস, প্রাইভেট কার ও মাইক্রো বাসে অগ্নিসংযোগ করে এবং বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ধ্বংসযজ্ঞ চালায়। তিন ঘন্টার বেশি সময় ধরে চলমান তাদের নির্বিচা র ধ্বংসযজ্ঞের বিরুদ্ধে মানুষের জানমালের নিরাপত্তা বিধানের দায়িত্বে নিয়োজিত বাংলাদেশ পুলিশের সদস্যরা চরম ধৈর্য্য ও সাহসিকতার সাথে তাদের পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে থাকে এবং আক্রমণকারীদেরকে ছত্রভঙ্গ করার চেষ্টা করে। এ সময় প্রায় শতাধিক পুলিশ সদস্য গুরুতর আহত হয় এবং কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজন ক।

তিনি বলেন, এই সার্বিক পরিস্থিতি আপনারা পেশাগত কারণেই প্রত্যক্ষ করেছেন এবং আপনাদের ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ায় প্রচার করেছেন। তদুপরি, শর্তসাপেক্ষে শান্তিপূর্ণভাবে সমাবেশ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েও পূর্বপরিকল্পিতভাবে এ ধরনের নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করার জন্য আইন অমান্যকারীদের প্রতি ধিক্কার জানাচ্ছি এবং একই সাথে যেসকল পুলিশ সদস্যরা পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে নিহত এবং আহত হয়েছেন তাদের প্রতি ও তাদের পরিবারবর্গের প্রতি গভীর শোক এবং সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।

সেই সাথে এ অঙ্গীকার করছি যে, যারা এ ধরনের অপরাধের সঙ্গে জড়িত তাদেরকে যথাযথভাবে আইনের আওতায় এনে এদের বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করাবো ইনশাআল্লাহ এবং ভবিষ্যতে যারা এ ধরনের দুষ্কর্ম এবং জনগণের জানমালের নিরাপত্তা বিঘ্নকারী কোন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড যাতে সংগঠিত হতে না পারে এবং করতে না পারে সেজন্য আইনানুগভাবে সর্বোচ্চ শক্তি দিয়ে প্রতিহত করার চেষ্টা করবো।

কমিশনার বলেন, হরতাল যেমন একটি গণতান্ত্রিক অধিকার। হরতাল পালন করা যেমন তাদের অধিকার, ঠিক তেমনি পালন না করাও কিন্তু জনগণের একটি অধিকার। হরতালের নামে অনেক ধরনের নৈরাজ্য চালানো হয়ে থাকে। আগামীকাল একটি দল হরতাল আহ্বান করেছে। হরতালের নামে কেউ যদি মানুষের স্বাধীন চলাফেরায় ব্যাঘাত সৃষ্টি বা মানুষের জান-মালের নিরাপত্তা বিঘ্নিত করার চেষ্টা করে বাংলাদেশ পুলিশ তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে কমিশনার বিএনপি-জামায়াত নেতাকর্মীদের হামলায় আহত সাংবাদিকদের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে বলেন, সাংবাদিকরা পুলিশের বন্ধু। তারা জাতির বিবেক। সাংবাদিকদের উপর হামলাকারীদের বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে ও পুলিশ সবসময় তাদের পাশে থাকবে।

ব্রিফিংয়ে ডিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (অ্যাডমি ন) এ কে এম হাফিজ আক্তার বিপিএম (বার); অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশনস্) ড. খঃ মহিদ উদ্দিন বিপিএম-বার; অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (লজিস্টিকস্, ফিন্যান্স অ্যান্ড প্রকিউরমেন্ট) মহাঃ আশরাফুজ্জামান বিপিএম; অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) মোঃ মুনিবুর রহমান; অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (সিটিটিসি) মোঃ আসাদুজ্জামান বিপিএম (বার); অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (গোয়েন্দা) মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বিপিএম (বার),পিপিএম (বার)সহ যুগ্ম পুলিশ কমিশনার গণ, উপ-পুলিশ কমিশনারগণ, বিভিন্ন পদমর্যাদার পুলিশ কর্মকর্তাগণ এবং প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিক বৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Our Like Page